২০০২ সালের গোধরা কাণ্ডে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ১১ অপরাধীর সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদন্ড, মাস্টারমাইন্ড সহ আরও ৬২ অভিযুক্ত আবার বেকসুর খালাস


গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট

  • গোধরা সবরমতি এক্সপ্রেস অগ্নিসংযোগ কান্ডে ৫৯ জন মারা যান
  • বেকসুর খালাসপ্রাপ্ত ৬৩ জনের শাস্তি চেয়ে রাজ্য সরকারের আপিল খারিজ।
  • ৩১ জন অভিযুক্তের মধ্যে ১১ জনের মৃত্যুদণ্ডের শাস্তি কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদন্ড।
  • আহমেদাবাদ : ২০০২ সালের গোধরায় সবরমতি এক্সপ্রেসে অগ্নিসংযোগ কান্ডের পরে গুজরাটে দাঙ্গা লেগে যায়, যার ফলে প্রায় হাজার জন মানুষ মারা যান।
    এই কাণ্ডে ৯৪ জনকে অভিযুক্ত করে গ্রেপ্তার করা হয়, যারা সবাই মুসলিম ছিলেন। এদের মধ্যে থেকে ৬৩ জন বেকসুর খালাস হন। ২০ জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড দেওয়া হয় এবং ১১ জনের মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়। তারা প্রত্যেকেই সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে গুজরাট হাইকোর্টে আপিল করেছিল। এই মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ১১ অভিযুক্তের সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিল গুজরাট হাইকোর্ট। গুজরাট পুলিশ ওই হত্যাকাণ্ডের মাস্টারমাইন্ড হিসেবে মৌলানা হুসেইন উমারজিকে অভিযুক্ত করলেও, ২০১১ সালে তাঁকে বেকসুর খালাস করে আদালত। তিনি ছাড়াও যে ৬৩ জনকে এই মামলায় বেকসুর খালাস করে দেওয়া হয়েছিল, তাদের শাস্তি চেয়ে হাইকোর্টে আপিল করেছিল গুজরাট সরকার। আর সেই আপিল খারিজ করে দিয়েছে এই বিশেষ আদালত। এছাড়ও যে ২০ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছিল, তাদের সাজাও অপরিবর্তিত রেখে দেওয়া হয়েছে।
    এর পাশাপাশি সবরমত অগ্নিসংযোগের ঘটনায় মৃতদের পরিবারকে ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার জন্য সরকার ও রেলওয়েকে নির্দেশ দিয়েছে এই বিশেষ আদালত।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *