PirZada Abbas Siddiqui, ISF, TMC, আব্বাস সিদ্দিকি

ব্রিগেডে যাওয়ার ‘অপরাধে’ ISF কর্মীদের উপর হামলার অভিযোগ তৃনমূলের বিরুদ্ধে

ব্রিগেডে পীরজাদা আব্বাস সিদ্দিকির ( Pirzada Abbas Siddiqui) সভায় যাওয়ার অপরাধে দেগঙ্গায় তৃনমূলের (TMC) আক্রোশের শিকার হল Indian Secular Front বা ISF এর বেশ কয়েকজন কর্মী।

তৃণমূলের বিরুদ্ধে Indian Secular Front এর তিন সদস্যের বাড়িতে হামলার অভিযোগ আনা হয়েছে। রবিবার রাতে দেগঙ্গার হাসিয়া গ্রামে এই ঘটনায় দুই মহিলা সহ পাঁচজন আহত হয়েছেন। অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের দাবিতে রাতে Indian Secular Front কর্মীরা এবং সমর্থকরা দেগঙ্গা থানায় বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। প্রায় আড়াই ঘন্টা ধরে এই বিক্ষোভ চলে। পুলিশ শীঘ্রই দোষীদের গ্রেপ্তারের প্রতিশ্রুতি দিলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক ফিরে আসে। তৃণমূল অবশ্য এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, হাসিয়া গ্রামের বেশ কয়েকজন ISF সমর্থক ব্রিগেডের জনসভায় গিয়েছিলেন। অভিযোগ, রাতে ব্রিগেড থেকে বাড়ি ফেরার পর তৃণমূল পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য রবিউল ইসলাম ও তার সহযোগীরা আক্তারুল বিশ্বাস, আক্তারুল জামান ও ফায়রুল রহমান মন্ডলের বাড়িতে হামলা চালায়। তাদের মারধর করা হয়। ভাঙচুর রোধ করার চেষ্টা করার সময় মহিলাদেরও মারধোর করা হয়েছিল। আহত হয়েছেন রহিমা বিবি ও রাঙ্গিলা বিবি নামে দুই মহিলা।

পীরজাদা আব্বাস সিদ্দিকি, Pirzada Abbas Siddiqui, ISF, TMC
পীরজাদা আব্বাস সিদ্দিকি ব্রিগেডের জনসভায়

আহত ISF সমর্থক ও দলের দেগঙ্গা এলাকার নেতা আখতারুল জামানের বাবা রফিকুল ইসলাম বলেছেন, “আমার ছেলে আব্বাস সিদ্দিকী জনসভায় যাওয়ার সাথে সাথে স্থানীয় তৃণমূল নেতা রবিউল ইসলাম একটি দল নিয়ে বাড়িতে এসে হামলা চালিয়েছে। ছেলেটিকে মাটিতে ফেলে মারধর করা হয়েছিল। আব্বাসের দল করলে গ্রামে থাকতে দেবে না বলেও হুমকি দিয়েছিল। আমরা তৃণমূল না করলে মাছের ভেড়া লুটপাটের হুমকিও দেয়।” ফজলুলের বাবা সুকাত আলী মন্ডল বলেছিলেন, “ছেলে তার ভাইজানের ভক্ত। তাই বিগ্রেড সভায় গিয়েছিল। সেজন্যই তৃনমূল নেতা রবিউল ছেলে ও তার পরিবারকে সেভাবে আক্রমণ করেছিল।”

এই প্রতিবেদন শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

CAPTCHA