এ বছর বিশ্বের সবচেয়ে সম্মানজনক ও মূল্যবান নোবেল শান্তি পুরস্কার পেয়েছে পরমাণু অস্ত্রমুক্তির আন্তর্জাতিক জোট ‘ইন্টারন্যাশনাল ক্যাম্পেইন টু অ্যাবলিশ নিউক্লিয়ার উইপনস’ (ইকান)

শুক্রবার, ৬ই অক্টোবর :- আজ নরওয়ের রাজধানী অসলোতে শান্তিতে পুরস্কার মনোনয়ন কর্তৃপক্ষ নরওয়েজিয়ান নোবেল কমিটির সংবাদ সম্মেলনে বিজয়ী হিসেবে ICAN -International Campaign to Abolish Nuclear weapons (ইকান) নামের একটি সংগঠনের নাম ঘোষণা করা হয়।

নোবেল কমিটির বিবেচনায় ‘যেকোনো পারমাণবিক অস্ত্রের ব্যবহার ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয় তৈরি করতে পারে বলে বিশ্ববাসীর মনোযোগ আকর্ষণে কাজ করায় এবং এ ধরনের অস্ত্রের ওপর চুক্তির মাধ্যমে নিষেধাজ্ঞা আরোপের লক্ষ্য অর্জনে যুগান্তকারী প্রচেষ্টার জন্য’ ইকান এই পুরস্কারে ভূষিত হয়েছে।

ইকান টুইটারে বলে –

সংবাদ সম্মেলনে ইকানকে বিজয়ী ঘোষণা করে নোবেল কমিটির চেয়ার বেরিত রেইস-অ্যান্ডারসেন বলেন,

“The organisation is receiving the award for its work to draw attention to the catastrophic humanitarian consequences of any use of nuclear weapons and for its ground-breaking efforts to achieve a treaty-based prohibition of such weapons”.

পুরস্কার বাবদ একটি সোনার পদক ও ৯০ লাখ সুইডিশ ক্রোনার (১১ লাখ ডলার) পাবে ইকান। আগামী ১০ ডিসেম্বর অসলোতে আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের হাতে এ পুরস্কার তুলে দেওয়া হবে।

১০ বছর আগে ২০০৭ সালে অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে গঠিত এই জোটের বর্তমান নির্বাহী পরিচালক বিয়াট্রিস ফিন, আর সমন্বয়ক ডানিয়েল হোগস্টা। ১০১টি দেশে ৪৬৮ অংশীদার সংগঠনকে নিয়ে কাজ করা ইকানের বর্তমান সদরদফতর জেনেভায়।

চলতি বছরের জুলাইয়ে পরমাণু যুদ্ধাস্ত্র মুক্ত বিশ্ব গড়ার লক্ষ্যে পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধের আইনগত বাধ্যবাধকতাসম্পন্ন (নিরস্ত্রীকরণ) ১২২ দেশের অনুমোদনে জাতিসংঘের যে চুক্তিটি পাস হয়েছে, তা সম্পাদনে উদ্বুদ্ধ করতে এবং বাস্তবায়নে ইকানের ভূমিকা যুগান্তকারী। যদিও পরমাণু শক্তিধর ৯ দেশের কেউই এই চুক্তিতে সই করেনি।

এবার নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য ৩১৮ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছিল। তবে খুব বেশি আলোচনায় ছিল না ইকান নামে নেদারল্যান্ডভিত্তিক এই বিশ্ব জোটটি। 

আলোচনায় ছিলেন ক্যাথলিক খ্রিস্টানদের ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস ও জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা মেরকেলের মতো ব্যক্তিত্বরা। ছিল জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা (ইউএনএইচসিআর), আমেরিকান সিভিল লিবার্টিস ইউনিয়ন, গাম্বিয়ায় শান্তি স্থাপনে ভূমিকা পালনকারী আঞ্চলিক জোট ইকোনমিক কমিউনিটি অব ওয়েস্ট আফ্রিকান স্টেটস (ইকোওয়াস), যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ায় হতাহতদের উদ্ধারে কর্মরত স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা হোয়াইট হেলমেটস, আন্তর্জাতিক লায়ন্স ক্লাবের মতো সংগঠনগুলো।

গত বছর শান্তিতে নোবেল পুরস্কার পান কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট  হুয়ান মানুয়েল সান্তোস। স্বদেশে গৃহযুদ্ধের অবসান ঘটানোর প্রচেষ্টা ও ফার্ক বিদ্রোহীদের সঙ্গে শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরের জন্য তাকে সেই পুরস্কার দেওয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *